শুরু হয়েছে চলতি বছরের এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষা

চলতি বছরে আট সাধারণ শিক্ষাবোর্ড সহ মাদ্রাসা ও কারিগরী শিক্ষাবোর্ডের অধিনে এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষা ২২৮৮টি কেন্দ্রে ১ এপ্রিল সকাল ১০টা থেকে একযোগে  শুরু হয়েছে।

বাংলাদেশের আটটি সাধারণ বোর্ডের অধীনে এইচএসসি, মাদ্রাসা বোর্ডের অধীনে আলিম এবং কারিগরি বোর্ডের অধীনে এইচএসসি ভোকেশনাল/বিএম (বিজনেজ ম্যানেজমেন্ট) ও ডিআইবিএসে ১০ লাখ ১২ হাজার ৫৮১ জন শিক্ষার্থী এ পরীক্ষা দিচ্ছে। শিক্ষার্থীদের মধ্যে ৫ লাখ ৩৫ হাজার ৬৬২ জন ছাত্র এবং ৪ লাখ ৭৬ হাজার ৯১৯ জন ছাত্রী। এর মধ্যে ৮ লাখ ২৩ হাজার ২৪১ জন এইচএসসি; ৮৮ হাজার ৭৭৯ জন আলিম, ৯৫ হাজার ৯৫৬ জন এইচএসসি বিএম/ভোকেশনাল এবং ৪ হাজার ৬০৫ জন ডিআইবিএস পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছে। গত বছরের তুলনায় এবারে পরীক্ষার্থী সংখ্যা বেড়েছে ৮৫ হাজার ৭৬৭ জন। এছাড়া এইচএসসিতে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বেড়েছে ২৪৭টি; পরীক্ষা কেন্দ্র বেড়েছে ৯২টি। এবার বিদেশে পাঁচটি কেন্দ্রে ১৬৫ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছে। এ বছর বাংলা প্রথম পত্র, রসায়ন প্রথম ও দ্বিতীয় পত্র, পৌরনীতি প্রথম ও দ্বিতীয় পত্র, ব্যবসায় নীতি ও প্রয়োগ প্রথম ও দ্বিতীয় পত্রে পরীক্ষা হবে সৃজনশীল প্রশ্নে। আগামী ২৮ মে তত্ত্বীয় পরীক্ষা শেষে ১ থেকে ১৪ জুন ব্যবহারিক পরীক্ষা হওয়ার কথা রয়েছে।

দেশের অস্থিতিশীল রাজনৈতিক পরিবেশের মধ্যে অন্যতম বৃহৎ পাবলিক পরীক্ষাটি অনুষ্ঠিত হচ্ছে। হরতাল সহ রাজনৈতিক বিশৃঙ্খলার মধ্যে এইচএসসি পরীক্ষা বাঁধাগ্রস্থ হ্‌ওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে, এমনটা গত এসএসসি পরীক্ষার গতি-প্রকৃতি থেকে অনুমান করা যায়। তবে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ পরীক্ষার দিনগুলোতে রাজনৈতিক দলগুলোকে হরতাল না দেবার আহ্নবান জানিয়েছেন। তাছাড়া হরতালে কোন পরীক্ষা স্থগিত হলে পরবর্তি ছুটির দিনে তা অনুষ্ঠিত হবে বলে জানিয়েছেন।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।